নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 8 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • ইকারাস
  • পৃথু স্যন্যাল
  • চূড়ান্ত
  • তায়্যিব
  • মোঃ মেজবাহ উদ্দিন
  • রাফিন জয়
  • নীল জোনাকি
  • জীহান রানা

নতুন যাত্রী

  • ষঢ়ঋতু
  • এনেক্স
  • আরিফ ইউডি
  • গলা বাজ
  • হুসাইন
  • তারুবীর
  • অন্তরা ফেরদৌস
  • শেখ সাকিব ফেরদৌস
  • প্রাণ
  • ফেরদৌস সজীব

আপনি এখানে

রাজেশ পাল এর ব্লগ

যেভাবে তিনি "জাইঙ্গা নাই জোনাকি " হয়ে গেলেন


পাড়ায় একদল নব্য মাস্তানের আমদানী হয়েছিল। যখন তখন যারে তারে মারধর করে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছিল। পরিস্থিতি এমনি চরমে উঠলো যে , নিজের পাড়া ছেড়ে পাশের পাড়ায় ও হামলা চালাতে লাগলো।

রুখে দাড়াতে হবে মুসলিম বিশ্বকেই


প্যারিস হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত হলো কারা?

ইউরোপ ,আমেরিকা , ইজরায়েল , চীন ,ভারত?

মোটেই নয়। এই ধরণের ঘটনাগুলো বরং তাদের মতপার্থক্য ভুলে কাছে আসার পথই সহজ করে দেয়। common enemy তাদের করে unified. যা আমরা দেখেছি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ , ১/১১ পরবর্তী দিনগুলোতে।

তাহলে কারা?

উত্তর নিসন্দেহে মুসলমানরা।

নরকের বর্ণনা


"নরকের বর্ণনা" নামে একটা বই পড়ছিলাম। প্রথমে পেরোতে হবে বৈতরনী নদী। পূণ্যবানরা পার হবেন নৌকায় বা সেতুতে। পাপীদের পার হতে সাতার দিয়ে। তাও যে সে নদী না , একেবারে সাপ ,হাঙর ,কুমীর ,অক্টোপাস সহ যত ধরণের হিংস্র জলজ প্রাণী আছে তাতে পরিপূর্ণ!

কোনরকমে ঐ পারে পৌঁছে গেলে শুরু হবে কোর্ট মার্শাল মানে বিশেষ আদালতে বিচার্। যে বিচারে শাস্তি শতভাগ নিশ্চিত।

তাও যে সে শাস্তি নয়। হাতে পায়ে পেরেক মারা , গরম তেলে ফ্রাই করা , জ্বলন্ত আগুনে কাবাব বানানো , চোখ উপড়ে ফেলা , ক্ষুধা ,তৃষ্ণা কোনকিছুতে এক ফোটা পানি না দেয়া কিছুই বাদ নেই। পড়ে গা শিউড়ে উঠল।

জাসদ ও ৭ ই নভেম্বর


আজ ৭ই নভেম্বর্।

" মুক্তিযোদ্ধা হত্যা দিবস "

৭৫ সালের এই দিনে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয় তিন কিংবদন্তী মুক্তিযোদ্ধা কে ফোর্সের খালেদ মোশাররফ বীরউত্তম , ক্র্যাক প্লাটুনের মাস্টারমাইণ্ড মেজর হায়দার বীরউত্তম , আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামী কর্ণেল হায়দার বীরউত্তম কে।

ক্ষমতায় আসেন জিয়াউর রহমান।কালুরঘাটের বেতার কেন্দ্রের মতো ভাগ্য আরো একবার সহায় হলো তার্।

দিনটিকে বিএনপি "সিপাহি জনতার বিপ্লব " নামে বেশ ঘটা করেই পালন করে। কিন্তু , জিয়া কি জড়িত ছিলেন সেই বিপ্লবে? মোটেই নয় ,তিনি তখন বন্দী ক্যাপ্টেন হাফিজের হাতে। নিজ গৃহে অন্তরীণ।

তাহলে কারা ঘটিয়েছিল বিপ্লবের নামে সে হত্যাকাণ্ড?

সেদিনের মীরমদন তাজউদ্দীন আহমেদ


১৬ ই আগষ্ট ,১৯৭৫ ,সকাল ১০ টা।

দ্রুতগতিতে আর্মি জিপটি এসে দাড়ালে তাজউদ্দীনের বাসার সামনে। জিপ থেকে নেমে এল মেজর ডালিম। পরনে পুরোদস্তুর সামরিক ইউনিফর্ম। যদিও সে তখন সামরিক বাহিনী থেকে চাকুরীচ্যুত। চোখে কালো সানগ্লাস ,হাতে স্টেনগান।

গটগট করে এগিয়ে গেল গেইটের দিকে। মোশতাক চক্রের ষড়যন্ত্রে তখন রাজনীতি থেকে যোজন দূরে অবস্থান মুক্তিযুদ্ধের এই অকুতোভয়. সিপাহশালারের্। তাই বাসায় পুলিশ প্রহরাও নেই। সামরিক অফিসার দেখেই বুকের পানি শুকিয়ে গেল দারোয়ানের্। গতরাতের ঘটনা তারাও জেনে গেছে।তাড়াতাড়ি গেইট খুলে দিল সে।

কেমন হবে বাঙলাস্তান?


কেমন হবে বাঙলাস্তান?

লেখক যাবে ,প্রকাশক যাবে , বিক্রেতা যাবে , ক্রেতা যাবে ,পাঠক যাবে , শাহবাগের প্রতিবাদী মুখগুলো যাবে , অনলাইন এক্টিভিস্ট ,প্রতিবাদী সাংবাদিকরা যাবে , একে একে সবাই যাবে।

কেউ যাবে দেশ ছেড়ে ,কেউ যাবে পৃথিবী ছেড়ে।

হয়তো আসবে আরেকটি ১৫ ই আগস্ট। ছাত্রলীগের সোনার ছেলেরা সব লুকিয়ে পরবে গর্তে। অফ হয়ে যাবে সিপি গ্যাং এর বীরত্বেপূর্ণ আইডিগুলো। হেফাজত আর ওলামা লীগ মিতালি পাতাবে জামাতীদের সাথে।ক্ষমতার মসনদে কেউ হবেন শাহানশাহ ,কেউ কাজী ,কেউবা উজিরে আজম।

মানুষের প্রকারভেদ


হেডস্যার ক্লাসে ঢুকতেই হট্টগোল থেমে গেল সবার্। এমনিতেই রাশভারী মানুষ ,তারউপর শ্রদ্ধাজাগানিয়া
মুখমণ্ডল। চশমার আড়ালে হীরার মতো চোখ দুটো জ্বলজ্বল করে প্রতিনিয়ত। চেয়ারে বসে ঝাড়া দুমিনিট তাকিয়ে রইলেন ছাত্রদের দিকে। স্যারের তাকানো দেখে বুক দুরুদুরু করতে লাগলো সবার্। আবার কি নতুন ঝামেলা হলো কে জানে? মাত্র দিন দশেক আগেই হুমায়ূন আর অঞ্জনকে স্কুলের পাশের ইদ্রিস সাহেবের বাড়ির ডাব চুরির অপরাধে বেত দিয়ে বেদম পিটিয়েছেন তিনি। মারের চোটে জ্বর উঠে গেছে দুজনেরই। তাই নতুন আশংকা পেয়ে বসেছে সবাইকে। সারা ক্লাসে পিনপতন নীরবতা।

--"আজ তোমাদের ক্লাস নেবো না। " নীরবতা ভেঙে বলে উঠলেন তিনি।

মেঘে ঢাকা তারা : একটি অনবদ্য চলচ্চিত্রের কথকতা


কিংবদন্তী পরিচালক ঋত্বিক ঘটকের জীবন আর কর্মকে
উপজীব্য করে নির্মাণ করা হয়েছে মেঘে ঢাকা তারা
ছবিটি।বিগত ১০ বছরের মধ্যে আমার দেখা শ্রেষ্ঠ
বাংলা ছবি এটি।ছবিটির মূল মেসেজ অনুধাবন করতে
হলে ঋত্বিক ঘটকের জীবন ও কর্ম সম্পর্কে ধারণা থাকা
প্রয়োজন।ছবির মূল চরিত্র নীলকন্ঠ বাগচি এক
ভাগ্যতাড়িত সৃষ্টির নেশায় বুঁদ হয়ে থাকা মানুষ।অত্যধিক
অবসাদ আর এলকোহল আসক্তির কারণে যাকে ভর্তি করা
হয় মানসিক হাসপাতালে।সেখানে তার পরিচয় ঘটে
ডাক্তারের সাথে।এই ডাক্তারের হয়ে ওঠেন নীলকন্ঠের
ফেলে আসা দিনের নীরব দর্শক।চোখের সামনে একে

রাজাকারদের পেইড এজেন্ট জাতির দুলাভাই ডেভিড বার্গম্যান


সাকা চৌধুরীর পক্ষে জাতির দুলাভাই ডেভিড বার্গম্যানের প্রাণান্তকর প্রচেষ্টার কথা আজ সবার মুখে মুখে।হেন কোন অপততপরতা বাকি নেই যা এদেশের মাটিতে বসে করছেন না যুদ্ধাপরাধীদের এই পেইড এজেন্টটি।এদেশের রাজনীতিতে বার বার পল্টি খাওয়া আমার শ্রদ্ধেয় সিনিয়র ডঃ কামাল হোসেনের মেয়ে ব্যারিষ্টার সারাহ হোসেনের স্বামী হওয়ার সুবাদে তিনি আজ জাতির দুলাহভাই।মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রতিটি সাধারণ মানুষের স্বপ্নসৌধ আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালকে বিশ্বের চোখে বিতর্কিত করার নিরলস অপচেস্টা করে চলেছেন এই লোকটি।যার সর্বশেষ সংযোজন ৫ পাকিস্তানী সাক্ষী আনার পক্ষে সাফাই গাওয়া।

কে এই বার্গম্যান?

একটি সত্য ঘটনা


--ছার একডা কথা কমু ?

--বলেন।

--আফনার লাইগা মাঝে মাঝে বড় দুঃখ হয়।

--কেন?

--আফনে মানুষডা খুউব বালা।আমার পোলাডারে মিছা মামলাটা থেইকা খালাস কইরা দিলেন।কিন্তুক
আফনে বেহেস্ত পাইবেন না।

--আপনি জানলেন কি করে?

--কিতাবে আছে মালাউনেরা বেহেস্ত পাইবো না।

--তো কিতাবে কি এটা লেখা আছে যে আমি দোজখে যাব?বেহেস্তে যাবনা এটাই তো লেখা আছে?
--তো ছার বেহেস্তে না গেলে দোজখেই তো যাইবেন ?

--নারে ভাই বেহেস্ত ছাড়াও স্বর্গ ,নরক,HEAVEN,HELL বলেও কিছু জায়গা আছে।ওখানেও যেতে পারি।

--এই জায়গাগুলার কথা কই আছে?

--কেন অন্য কিতাবে?

--হেইগুলাও কি আসমানী কিতাব?

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

রাজেশ পাল
রাজেশ পাল এর ছবি
Offline
Last seen: 1 দিন 11 ঘন্টা ago
Joined: বুধবার, অক্টোবর 22, 2014 - 2:54পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর