নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • দ্বিতীয়নাম
  • নিঃসঙ্গী
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • মিঠুন বিশ্বাস

নতুন যাত্রী

  • চয়ন অর্কিড
  • ফজলে রাব্বী খান
  • হূমায়ুন কবির
  • রকিব খান
  • সজল আল সানভী
  • শহীদ আহমেদ
  • মো ইকরামুজ্জামান
  • মিজান
  • সঞ্জয় চক্রবর্তী
  • ডাঃ নেইল আকাশ

আপনি এখানে

মহামান্য গুরুভাই এর ব্লগ

ধর্ষন পাপ, প্রেম মহাপাপ! ।। নিবিড় রৌদ্র।


প্রেমের একেক দশক, একেক যুগ
পেরিয়ে যায় অতঃপর; প্রেমের দায়ে
দোষী সাব্যস্ত হয়ে অসহায় প্রেমিককে
জেলে খাটতে দেখেছি আমি,
কত প্রেমিকের সুন্দর সাজানো জীবন
নষ্ট হতে দেখেছি।
সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হতে দেখেছি।
আমি বহু আত্মভুলাকেও দেখেছি
পরম প্রিয়তমাকেও হারিয়ে উন্মাদ

প্রজন্মের সুস্পষ্ট ইতিহাস!


আমি জানি,
আজ যে পুরুষ বুকে দেশপ্রেম-
মনে যোদ্ধাপরাধীদের প্রতি তীব্র ঘৃণা
সমেত তার মৌলিক দাবীর বহিঃপ্রকাশ
ঘটাতে ছুটে যাবে শাহবাগ,
প্রজন্মের জাগরণে যার-
ঐতিহাসিক পরিচয় প্রজন্ম চত্বর নামে।

বাঙালি আমার পরিচয়! ।। নিবিড় রৌদ্র।


মাগো,
এই বাংলায় জন্মেই দেখেছি আমি তোমাকে-
হাস্যোজ্জ্বল তোমার মুখখানি।
চোখে ছলছল নোনাজল,
আনন্দ-অশ্রু নিয়ে বাংলা বর্ণমালায়
ধ্বনিত করেছিলাম প্রথম চিৎকার-
আমি, মা..মা.. বলে।
বেড়ে উঠেছি খেয়ে এই বাংলার
মাটি-জল ফুল-ফল। বৃষ্টিতে ভিজেছি-
রোদে শুকিয়েছি, সিক্ত হয়েছি
ভোরের শিশিরে, নিশির আঁধারে।
আজ বিশ্বের বুকে আমার পরিচয় আমি,
আমি বাঙালি- বাঙালি আমার পরিচয়!
আমার পূর্বপুরুষও ছিলেন বাঙালি।
সেই পরম্পরায় আমিও আজ মাথা উঁচু করে-
বুক ফুলিয়ে গর্বের সহিত বলতে পারি,
আমি বাঙালি- বাঙালি আমার পরিচয়!

মাগো,
কেন জানি বড় ভয় হয়!
যদি কখনো বিশ্বের দরবারে আমি,

বধূয়া!


বধূয়া, এখনো কী ভোরের জ্যোছনাতে
বকুল কুড়িয়ে রাখো আঁচলতলে,
এখনো কী মালা গেঁথে চুলের খোঁপাতে
বাঁধো স্নানটি সেরে সাতসকালে?

বধূয়া দেখিনা দেখিনা তোমায় কতদিন হল,
ভাবতে ভাবতে মোর চোখ ছল-ছল!
আজো কী হাসো সেই বাঁধ ভাঙ্গা হাসি দেখে
হংসমিথুনের দল যখন ডানা মেলে ভাসে জলে?

বিভাজিত প্রেম!


হ্যাঁ, আমি! আমিই তোমার সেই
ফেলে আসা অতীতের স্বঘোষিত প্রেমিক;
যার প্রেম তুমি ভর দুপুরের নির্জনতায়
মাটিচাপা দিয়ে চোখের জলে লেপে দিয়েছিলে!

অনাদিকাল পর তোমার প্রেমের স্পর্শে
আবারও সমাধি হতে এসেছি।
অমর হতে চাইনি কোনদিন, তোমায়
ভালবেসে মরতে চেয়েছি কেবল বার বার।

দ্রোহী-জলে বিদ্রোহী! - বিদ্রোহী কবি `কাজী নজরুল ইসলাম' এর আবির্ভাব স্মরণে৷


ষ্টি হচ্ছে মেঘে মেঘে,
বৃষ্টি হচ্ছে তুমুল বেগে-
পড়ছে ঝরে প্রবল বেগে!

আকাশ-বুকে লালিত বহু দিনের দ্রোহ-
দ্রোহে'র বৃষ্টি ঝরছে আজি ছন্দ মূহুর্মূহ৷

ক্রমে ক্রমে যাচ্ছে মিশে-
জ্বলন্ত, তপ্ত রোদে'র চোখে!
যাহার মাঝে উকি দেয়, যত দ্রোহী-জল;
জেগে উঠে `দ্রোহ-কন্যা' রক্তবর্ণ মেখে৷

রাত্রি উদযাপন!


রাতের আকাশ তারায় গেঁজা-গেঁজি,
দাঁড়িয়ে আছি চন্দ্র মাঝা-মাঝি৷
ঈশান কোনে মেঘ এসে দেয় উঁকি,
গুড়ুম-গুড়ুম বিরামহীন সে কি হাকা-হাকি!
ডানা ঝাপটে আঁতকে উঠে ঘুমাক্রান্ত পাখি,
ব্যথা ভরা ভীত-স্বরে ক্ষনিক ডাকা-ডাকি৷
আতঙ্কিত দিবা-চরার হৃদ-কম্পার ছন্দে,
রাত-চারিনী পাখি সকল সুর তুলে স্বা-নন্দে!
পাখি-কন্ঠেও স্ব-হিংসার অভিশপ্ত বীণ,
রাত-চারিনী ভুলেই গেছে দিবা-চরার ঋণ৷

ইচ্ছেদের অনুরোধ!


কষ্ট গুলো বেচে দেব দুঃখ যত ভুলে
বিষাদ শত মুছে দেব, তোকে দেখার ছলে৷
কান্না গুলো উড়িয়ে দেব হাসির কপাট খুলে
বিষন্নতা ভাসিয়ে দেব, শীতলক্ষ্যার জলে৷
ব্যস্ততাকেও ছুটি দেব কারন হবি তুই?
তোর বুকেতেই খোঁজব আকাশ নক্ষত্রের সুই৷
তোর আকাশেই মেলব ডানা, পাখিও যদি হই
চাঁদের হাঁটে দেব পাড়ি, আসিস যদি তুই৷
এতো করে ডাকছে মেঘ, বৃষ্টি হবি তুই?

অজ্ঞাত কাল!


কেমন আছ?
আকাশ-ভাল৷

কি কর এখন?
শব্দ সাজাই৷

আমাকে মিস কর?
না৷

মনে পড়েনা?
সময় কই!

খুব ব্যস্ত?

আমাদের `স্ব-সু-মেধা' এবং তার আধুনিকায়ন!


এসএসসি পরীক্ষা ২০১৪ চলাকালে, প্রশ্ন প্রকাশের খবর শুনে এক ছোট ভাই আমার কাছে সেই প্রকাশিত প্রশ্নের খুোঁজ এনে দেয়ার আবদার করেছিল৷ কিন্ত আমি তাকে হতাশ করে দিয়ে বলেছিলাম এগুলো গুজব, বোর্ড পরীক্ষার প্রশ্ন কখনো প্রকাশ হয়না৷ গুজবে কান দিওনা৷

গতকাল জানতে পারলাম, সে ছেলেটিও এ+ পেয়ে পাশ করেছে।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

মহামান্য গুরুভাই
মহামান্য গুরুভাই এর ছবি
Offline
Last seen: 3 years 1 month ago
Joined: সোমবার, মে 13, 2013 - 2:21অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর