নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • কিন্তু
  • নুর নবী দুলাল
  • মোঃ রাব্বি সাহি...
  • ড. লজিক্যাল বাঙালি
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী

নতুন যাত্রী

  • আরিফ হাসান
  • সত্যন্মোচক
  • আহসান হাবীব তছলিম
  • মাহমুদুল হাসান সৌরভ
  • অনিরুদ্ধ আলম
  • মন্জুরুল
  • ইমরানkhan
  • মোঃ মনিরুজ্জামান
  • আশরাফ আল মিনার
  • সাইয়েদ৯৫১

আপনি এখানে

মহামান্য গুরুভাই এর ব্লগ

এভাবেই বৈশাখ আসে!


চৈত্র সংক্রান্তিতে মায়ের হাতের পাঁচন খেয়েছি অনেকবার
পাঁচ তরকারি শাক- আতপচালের অন্ন আর মিষ্টান্নভোজন,
শেষ বিকেলে চড়ক পূজো থেকে বাড়ি ফিরতাম বিস্ময় নিয়ে!
পহেলা বৈশাখ আমার কাছে কখনোই অন্যরকম ছিলনা,
এক বৈশাখেও কোনদিন পান্তা কিংবা ইলিশ খাওয়া হয়নি-
সখের বশে বিলাসীতার বালাই দিতে আমার গায়ে বাঁধে!
সন্ধ্যাটুকু পাঠ্যবইয়ের পাতা- সহজ অঙ্কের নোটখাতা গুনতে গুনতে-
বোনেদের মুখে বৈশাখী মেলার গল্প শুনতে শুনতে কেটে যেতো
রাত্রির ঘুম নামলেই আমার চোখে হানা দিতো নবপঞ্জিকার রাশিফল,
এখনো উচ্ছ্বাসে বৈশাখ আসে চৈতি রোদে পুড়ে আমার চোখে শুধুই মেঘদল!

লালন জিজ্ঞাসা ও আরো পাঁচ কথা! - নিবিড় রৌদ্র


লালন জিজ্ঞাসা
_______নিবিড় রৌদ্র

ঐ আকাশ যখন বর্ণমালার 'আ' তেও ছিলনাকো
জিজ্ঞাসিলে খোদার কথা ওরা কোথায় দেখাতো!
ও লালন জান নাকি তখন?
জিজ্ঞাসিলে খোদার কথা ওরা কোথায় দেখাতো!

শূন্যে শূন্যে মহাশূন্যে শূন্য ছাড়া আর কাহার বাস?
গ্রহ তারা চাঁদের সাড়া সবই নাকি তাহার আভাস!
তাই যদি হয় সৃষ্টির আগে চাঁদের 'চ' সে কোথায় থাকিতো?
জিজ্ঞাসিলে খোদার কথা ওরা কোথায় দেখাতো!
ও লালন জান নাকি তখন?
জিজ্ঞাসিলে খোদার কথা ওরা কোথায় দেখাতো!

এক দুই- অসীম সংখ্যা মাঝে খোদা যদি হয় একাকার
কোথায় ছিল খোদা যখন একেরও ছিলনা আকার?
একের মাঝে সব একাকার- ওরা শূন্য মানে বুঝেতো?
জিজ্ঞাসিলে খোদার কথা ওরা কোথায় দেখাতো!

'স্বাধীনতার শুভেচ্ছা জানানোর আমি কে!' এবং চারটে কবিতা।


স্বাধীনতার শুভেচ্ছা জানানোর আমি কে!
_______ নিবিড় রৌদ্র

স্বাধীনতার শুভেচ্ছা জানানোর আমি কে?
স্বাধীনতা ঢুকরে কাঁদে দরজাআঁটা ঘরে,
স্বাধীনতার শুভেচ্ছা জানানোর আমি কে?
স্বাধীনতা বেঁচে আছে আজ ধর্মকে আঁকড়ে ধরে!
স্বাধীনতার শুভেচ্ছা জানানোর আমি কে?
স্বাধীনতা পেটের দায়ে অথচ পতিতার পরিচয়ে!
স্বাধীনতার শুভেচ্ছা জানানোর আমি কে?
স্বাধীনতা মরে পড়ে থাকে নগরীর ব্যস্ত মোড়ে।
স্বাধীনতার শুভেচ্ছা জানানোর আমি কে?
স্বাধীনতা চুরি যায় এখন রাতের আঁধারে!
স্বাধীনতার শুভেচ্ছা জানানোর আমি কে?
স্বাধীনতা ধর্ষিত হয় এখানে সৎ-ভদ্র ভর দুপুরে।
স্বাধীনাতার শুভেচ্ছা জানানোর আমি কে?

নিবিড় রৌদ্রে'র চার কবিতা...!


যাচ্ছে যদি যাকনা চলে রৌদ্রজ্বলা দিন,
আমার কাছে থাকনা জমা তোমার কিছু ঋণ
আজ শহরে আগুন ঝড়ে ঝরছে বারুদ
সেই মেয়েটির বারান্দাতে আজ অবরোধ!
কোন সে পথিক পথের মাঝে সন্ধ্যা হারায়
এ কোন পাখি রোদের ভেতর পালক ছড়ায়?
আজকে আমি পাখি হব আগুন পাখি
রোদন রোদের বক্ষ ছিঁড়ে উড়তে থাকি,
উড়তে উড়তে ডানায় আগুন- আগুন ডানায় লীন
আমার কাছে থাকনা জমা তোমার কিছু ঋণ।

এই নষ্ট শহরটাতে দৈন্যদশার দৈনিক গড়াগড়ি
এই যান্ত্রিক নগরটাতে নিয়মতান্ত্রিক বড্ড বাড়াবাড়ি!
নষ্ট ফুলের পরাগ যেন ধুলোয় চড়ে চড়ে
ঝুলে থাকে পর্দাটানা জানলার কাঁচ ধরে,
মানুষগুলো ইমারতে মানুষ খোঁজে
লজ্জাতে কেউ ক্লান্তিতে কেউ দুচোখ বুজে-

এই অবাকাশ!


এখন ক্লান্ত সবাই, কোথাও ব্যস্ত শহর সুখআলাপনে-
আমি হাতরে ফিরে স্মৃতি আজ কাঁদিনা আর অভিমানে!
কি যেন জ্বলে দহনে ছাইদানিতে আর হৃদয় পুড়ে
ওরা সুখে থাক্ খুব ভালো থাক্ সবে নিয়মের ঘরে,
ভালবাসা একাকী যায়না ধরে রাখা বুকে,
আপন বিশ্বাস আপনাতেই দাঁড়ায় যেন রুখে
একা পথা চলা আর পাগল পাগল পাগল
একা প্রথা মাড়িয়ে পাগল পাগল পাগল!
আজ তাই গুনগুন সুরেসুরে- সাময়িক উড়েউড়ে
ফড়িঙের দলে মিশে শুয়ে থাকি ঘাসে,
তাকিয়ে আকাশ দেখি এই ভেবে নিরবধি
যদি কাল না আসে দিন শেষে এই অবকাশ।

ওবেলার প্রেমগুলো দিনরাত নিয়মিত
একে একে খেয়েছিলো কাকে,
তাই আজ ভালবাসা- মিছে আশা মনে হয়

নিবিড় রৌদ্রের পাঁচ-প্যাঁচাল


আমি বেঁচে আছি,
জিজ্ঞেস করো প্রাণ চাহে কি মোর!
কিসের ব্যাথা বাজে মনে রাতদুপুর।

আমি বেঁচে আছি ঠাঁই দাও বুকে
তাকাও,দেখো দ্রোহাগুন খুঁজে পাবে চোখে-
কান পেতে শুনো হৃদে কম্পিছে প্রেমের নুপুর।

আমি বেঁচে আছি তাই কোন নাম নেই
আমি জীবিত বলে অনুভূতি সমাহারে দাম নেই,
আর আমায় নিয়ে গবেষণা সেতো বহুদূর!

একদিন সব হবে, পূর্ণতা পাবো যবে-
অনাকাঙ্ক্ষিত একদিন দেখা পাবো পথমাঝে
সেই কাঙ্ক্ষিত মধুময় প্রেমময় মৃত্যু'র।

[মধুময় প্রেমময় মৃত্যু!
- নিবিড় রৌদ্র।
তারিখ- ১৬।০৩।১৫ ইং]
-----------------------

যে প্রেম খেয়ে গেছে
সোনালী পতঙ্গেরা কোনদিন উড়ে এসে,

শিশসূলভ কবি!


অথবা বলতে পারো,
অদ্ভুত ইস্যুহীনতায় ভুগে কবি প্রতিজন
নতুবা বলতে পারো
সব ইস্যুতেই সব কবিদের শিশুসূলভ অংশগ্রহণ।

হোক তা প্রেমানুরূপ হোক কিংবা প্রিয়ার স্বরূপ;
আর যদি অধিকার ক্রমাগত বিদ্রোহে নেয় রূপ
তাতেও কেঁদে উঠে, আচমকা কেঁপে উঠে কবিমন-
সব ইস্যুতেই সব কবিদের শিশুসূলভ অাচরণ।

যদি মুখর পথে পড়ে থাকে অনাহারী মানব
কবিদের মনে জেগে উঠে মানবিক দানব,
যেন দুনিয়ার তাবৎ মানুষ কবি-আত্মার স্বজন!
সব ইস্যুতেই সব কবিদের অকারণ দৃষ্টিক্ষেপন।

আর যদি অবহেলা পায় কবি প্রতি দ্বারেদ্বারে
কবি ভুলে যেয়ে হেসে উঠে আর উল্লাস করে,
কবি বাতাসে কান পেতে শুনে নীতির ক্রন্দন-

পাকিস্থানের ইতিহাস!


আগুন ঝরা ফাগুন আমার
রক্ত ঝরা মার্চ,
এমনি এক কালো রাতে
পাক সেনাদের সার্চ!

বাঙালিদের ঘরে ঘরে
সেই আগুনের রেষ,
ঘুমন্ত বাপ ছেলে বুড়ো
সব যে পুড়ে শেষ!

প্রত্যক্ষে আড়াল যে ভবিষ্যৎ!


দুর্বিত্তের ইতিবৃত্তে তুমিও মানুষ,
আজ আমার মৃত্যুর জন্য কোন শোক প্রকাশ নয়!
জেনে রেখো,
একদিন অপঘাতে তোমার মৃত্যুর জন্যও
কেউ দায়ী নয় কেউ দায়ী নয়।
আমি দেখেছি জনপথে সত্যের মুন্ডকাটা লাশ,
বিস্তৃত জনতার সম্মুখে মিথ্যার গলাছেঁড়া উল্লাস!
প্রতিনিয়ত প্রচলিত সামাজিক নজরে
আমি দেখেছি অবিরাম মূল্যবোধের অবক্ষয়,
আমি জেনেছি পাষানের পাঁজরে
আবদ্ধ নয় আজ হিংস্র অসৎের জয়;
বিবেকের কাছে মুখোশের পাছে বিচলিত
আর মানবের মানবিকতার পরাজয়!
জেনে রেখো,
একদিন অপঘাতে তোমার মৃত্যুর জন্যও
কেউ দায়ী নয় কেউ দায়ী নয়।
আমি সেই আদিম মানব সেই সুপ্রাচীন ভিত্
আমি-ই সেই রক্ষনশীল মূর্খগর্ভে সংকুচিত মিত্-

আমরা ঘাতক বাঙালি!


আমরা ইতিহাসের পাতার সাথে মিলেমিশে
হাঁসের মাংস ঢেলে বিদেশী গ্লাসে প্রোগ্রাসে গিলি,
আমরা বায়ান্ন আর একাত্তরের বোকা শহীদের
পিঠ চাপড়ে হেসে হেসে আমরা ইতিহাসের পাতার সাথে মিলেমিশে
হাঁসের মাংস ঢেলে বিদেশী গ্লাসে প্রোগ্রাসে গিলি,
আমরা বায়ান্ন আর একাত্তরের বোকা শহীদের
পিঠ চাপড়ে হেসে হেসে সাবাস সাবাস বলি!
মৃত্যু দেখি মৃত্যু খেয়ে মৃত্যু নিয়ে হত্যা হত্যা খেলি
স্বজাতির শাখা ভেঙ্গে পা টিপে পাতায় পাতায় চলি,
আমরা কথায় কথায় অওম শান্তির আওয়াজ তুলে বাজাই করতালি,
আমরা মানচিত্রে সবুজ লালে আধুনিক বাঙালি।

আমরা পাকিস্তানের পক্ষ নিয়ে সখ্যতাতে রাজাকার আর
মীর জাফরের ভাষা ছুঁড়ে দেই যখন তখন গালি,

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

মহামান্য গুরুভাই
মহামান্য গুরুভাই এর ছবি
Offline
Last seen: 2 years 9 months ago
Joined: সোমবার, মে 13, 2013 - 2:21অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর