নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 13 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • পৃথু স্যন্যাল
  • আব্দুর রহিম রানা
  • নুর নবী দুলাল
  • মাহিন রহমান সাকিফ
  • পান বিক্রেতা
  • নাস্তিকের আত্মকথা
  • দুরের পাখি
  • আবু মমিন
  • হাবিজাবি গল্পকার
  • আমি অথবা অন্য কেউ

নতুন যাত্রী

  • আতিক ইভ
  • সোহাগ
  • রাতুল শাহ
  • অর্ধ
  • বেলায়েত হোসাইন
  • অজন্তা দেব রায়
  • তানভীর রহমান
  • এমডি নুরুজ্জামান
  • দ্যা রেশনাল মাইন্ড
  • মি. এস.বি

আপনি এখানে

ব্লগসমূহ

আমি নিজেকে কখনো কমিউনিস্ট বলে দাবি রাখি না......


আমি কখনো নিজেকে কমিউনিস্ট দাবি করিনি কারন আমি জন্মগত ভাবেই কমিউনিস্ট, জন্মের পর থেকেই সর্বহারা। আমার জন্মের কিছু বছর পর যখন আমি বুঝতে শুরু করি সমাজে তিন শ্রেণীর মানুষ বসবাস করে- উচ্চবিত্ত শ্রেণী, মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত শ্রেণীর। আমি জানতে শুরু করি কেউ বড় লোক আর কেউ ছোট লোক। আমার চারপাশে কেউ পেট ভরে খায় আর কেউ না খেয়ে মরে। আমি আমার পরিবার থেকেই জানতে শুরু করি, উপোস থাকা আমাদের ফ্যাশন আর রোজা রাখা ধর্মের কাজ! কত ভঙ্গির বড়লোকই না দেখলাম, তবে কেউই মনের দিক থেকে নয়! সেই উচ্চবিত্ত জ্ঞানপাপীরা যদি বড় মনের হতো আজ রাস্তায় মানুষ ঘুমোতো না আজ কেউ না খেয়ে মরতো না।

ধর্ম, দর্শন ও বিজ্ঞান-৩


শূন্য থেকে মহাবিশ্ব

০.০ শূন্য কি আমরা জানিনা! অসীম কি তাও আমরা জানিনা! ঈশ্বর কিংবা ব্রহ্ম কি তাও জানিনা! প্রথমোক্ত দুটি চিন্তা গানিতিক চিন্তন থেকে উদ্ভূত যা গনিত কিংবা পদার্থবিজ্ঞানের সঙ্গে যুক্ত যদিও শূন্য ও অসীম চিন্তন দর্শনেরও বিষয়। আর ঈশ্বর কিংবা ব্রহ্ম চিন্তা ধর্ম ও দর্শনের প্রত্যয়।

মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে শুনলাম এক কাটমোল্লার গালি


মানুষ বড় আশা নিয়ে মসজিদে জুম্মার নামাজ আদায় করতে যায়। আর বড় আশা থাকে মানুষের মনে। আজ হয়তো নতুন কিংবা ভালো কোনো কথা সে শুনবে। কিন্তু সে আশায় গুড়ে বালি।

আজ আমিও মসজিদে গিয়ে বড় আশাহত আর মর্মাহত হয়েছি। আর মনে মনে ভীষণভাবে লজ্জিত হয়েছি। আমাদের দেশের আজকালকার এইসব মসজিদের ইমাম কি পাগল? এদের কথাবার্তার কোনো লাগাম নাই। এরা দিন-রাত পাগলের মতো প্রলাপ বকে যাচ্ছে। আর নিজের মনগড়া কথাকে আজ নিজের স্বার্থে ধর্ম বলে প্রচার করছে।

পাকিস্তানীরা ৭১-এ কেমন লড়েছিল?


মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ কিংবা এমন সংখ্যক বাঙ্গালী হতাহতের হিসেবের বাইরে। সম্ভবত ২২০০০ মুক্তিযোদ্ধা নিহত হয়েছিলেন। মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ছিল ২-৩ লাখ। ইন্ডিয়ান বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স এবং সেনা সদস্যরাও ডিসেম্বরের আগে থেকেই মুক্তিবাহিনীর অনেক অপারেশনে সাহায্য করেছে, অংশ নিয়েছে, ফায়ার সাপোর্ট এবং নির্দেশনা দিয়েছে। ডিসেম্বরে আরতীয় বাহিনীর প্রায় তিনটি কোরের ৮ ডিভিশন সেনা বাংলাদেশে মুক্তিবাহিনীর সহায়তায় অভিযান শুরু করে আনুষ্ঠানিক যুদ্ধ ঘোষণার পর। শক্তিশালী নৌবাহিনীর মাধ্যমে বঙ্গোপসাগরে ছিল নেভাল ব্লকেড। বিমান বাহিনীর একমাত্র জঙ্গী বিমানের বহর ১৪ নং স্কোয়াড্রন এফ-৮৬ স্যাবর জেট অপারেট করতো কেবলমাত্র ঢাকা থেকে। ইন্ডিয়ানদের ছিল চতুর্দিকে প্রায় ৫ টি মেইন এয়ারবেস এবং ১০ টির বেশি জঙ্গী বিমানের স্কোয়াড্রন।

এত বিশাল ভূখন্ড দখলে রাখতে পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিল অন্তত ১০ ডিভিশন সেনা, শক্তিশালী নো এবং বিমান বাহিনীর উপস্থিতি, সাথে প্যারামিলিটারী বাহিনীর সদস্যদের। জনগনের কমপক্ষে ৯০ শতাংশের প্রত্যক্ষ কিংবা নীরব সমর্থন ছিল স্বাধীনতার পক্ষে। এত বিশাল জনগোষ্ঠীকে অস্ত্রের মুখে দমিয়ে রাখতেও দরকার ছিল বিপুল সংখ্যক সেনার।

অন্ধ গুরুবিশ্বাস ও জাত্যাভিমান হিন্দুদের অনৈক্যের কারণ!


হিন্দুদের অনৈক্যের অন্যতম প্রথম কারণ হল এদেশে হিন্দুদের ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে উঠেছে অসংখ্য গুরু!

হাইটেক প্রিজন ভ্যান


কারাগারের দুর্ধর্ষ অপরাধী বন্দিদের এক জেলখানা থেকে অন্য জেলখানায় স্থানান্তরের জন্য বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অধীনে পরিচালিত গাজীপুরের বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরি থেকে তৈরিকৃত উন্নত প্রযুক্তির ওয়েভ বেইজড বাংলাদেশ জেল প্রিজন ভ্যান চালু করতে যাচ্ছে কারা অধিদফতর। আধুনিক প্রযুক্তি সম্বলিত প্রিজন ভ্যান দুটিতে বিশেষায়িত সফটওয়্যারের মাধ্যমে ভ্যানে অবস্থানকারী দুর্ধর্ষ আসামি ও কারা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রতি মুহূর্তের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করা হবে। এ সফটওয়্যারের সঙ্গে যুক্ত কারা অধিদফতরের কর্মকর্তারা বাংলাদেশসহ বিশ্বের যেকোনো স্থান থেকে গাড়ির গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করতে পারবেন। মোবাইল ফোনের মাধ্যমেও গতিবিধি

মুহাম্মদের কোন দোষ নাই, সে ডাকাতও নয়।


কোরান হাদিস সিরাত ঘাটলে দেখা যাবে , ইসলাম অমুসলিমদেরকে প্রচন্ড ঘৃনা করতে , তাদেরকে নিকৃষ্ট জীব মনে করতে শেখায়। আর সেই কারনেই দুনিয়ার প্রতিটা মসজিদে জুম্মার নামাজের পর অমুসলিমদের ধ্বংস কামনা করে ও অভিশাপ দিয়ে খুতবা দেয়া হয়। এ ধরনের নিকৃষ্ট প্রানীদের ধন সম্পদ জোর করে কেড়ে নেয়ার জন্যে কোরান হাদিসে সুস্পষ্ট নির্দেশ বিদ্যমান আর সেটাই আল্লাহ আমাদের নবী মুহাম্মদকে বলেছে , সে নির্দেশ পালন করতে গিয়েই মুহাম্মদ হয়ে গেছে দুনিয়ার শ্রেষ্ট ডাকাত।

জোছনা


জোছনায় অালোকিত রাত,
নিমগ্ন তোমার উষ্ণতায়।
কল্পনায় তোমায় ছুঁতে পারি,
প্রচন্ড শীতের থরথর কাঁপি।
তোমার অপেক্ষায় রাত জেগে থাকা,
তোমার স্মৃতিতে শব্দছক অাঁকি।
শিউরে ওঠে অনুভুতিগুলো,
ক্ষণে ক্ষণে সম্মোহিত হই।
তোমার ভয়ংকর রূপসুধায়,
মুগ্ধতায় লুটোপুটি খাই।
তুমি গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন,
আমি তোমার ছায়া খুঁজে যাই।
কিছু অপেক্ষা মধুর হয়,
অনুভবের কড়া ঘ্রাণ পেলে।
এ অদ্ভুত সুন্দর শীত জোছনায়,
তুমি এসো উষ্ণ অালিঙ্গনে।

দুইটি নৈতিক বানীঃ ১. অহিংসা পরম ধর্ম ও ২.জীব হত্যা মহাপাপ


১) অহিংসা পরম ধর্ম। ২) জীব হত্যা মহাপাপ।
__বুদ্ধ

১.১ মানুষ হলো এক কোষী প্রানী/জীব এরই বিবর্তিত কিংবা ক্রমবিকশিত রুপ।

১.২ অতএব, এক কোষী জীবও ক্রম সংকোচিত একজন বুদ্ধ মানব।

১.৩ জগতের প্রতিটি সত্তা জড়-অজড় কিংবা জীব-অজীব প্রত্যকই পরস্পর সম্পর্কযুক্ত এক আন্ত:জালিক বন্ধনে আবদ্ধ। প্রতিটি সত্তাই(জড়, জড়-কনা, জীব, অনুজীব) একে একটি পয়েন্ট।একে বলা যেতে পারে জগতের নেটওয়ার্ক যা জগৎরূপ সুবিশাল মহা কম্পিউটারের সঙ্গে যুক্ত।

পৃষ্ঠাসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর