নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 13 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মূর্খ চাষা
  • নরসুন্দর মানুষ
  • রাজিব আহমেদ
  • কাঠমোল্লা
  • পৃথু স্যন্যাল
  • আল আমিন হোসেন মৃধা
  • নিরব
  • সাগর স্পর্শ
  • দ্বিতীয়নাম
  • নুর নবী দুলাল

নতুন যাত্রী

  • মাসুদ রুমেল
  • জুবায়ের-আল-মাহমুদ
  • আনফরম লরেন্স
  • একটা মানুষ
  • সবুজ শেখ
  • রাজদীপ চক্রবর্তী
  • নাজমুল-শ্রাবণ
  • চিন্ময় ভট্টাচার্য
  • নেইমানুষ
  • পরাজিত শুভ

আপনি এখানে

ব্লগসমূহ

রোকেয়ার ইসলামিকরণ:পর্ব:২


তাদের রোকেয়া-চর্চায় রোকেয়ার প্রবল স্তুতি দেখা যায়। নারী-স্বাধীনতা আন্দোলনে তাঁর ভূমিকার উচ্ছ্বসিত প্রশংসায় তারা মুখর । তারা তাঁকে সমাজ সংস্কারক, নারী-স্বাধীনতা আন্দোলনের পথিকৃত, নারী-মুক্তি সংগ্রামের অগ্রণী সেনাপতি ও জননী, নারী জাগরণের অগ্রদূত ইত্যাদি বহু সন্মানে সম্মানিত করে সমাজের সবচেয়ে অগ্রগণ্য মনীষীদের আসনে বসিয়েছে। মানব সমাজের সবচেয়ে উঁচু আসন রোকেয়ার প্রাপ্য তা নিয়ে কোনো দ্বিধার জায়গা নেই । যে মনন এবং মেধা, সাহস ও দুর্লভ অবদানের জন্যে রোকেয়ার মর্যাদা ও সম্মান প্রাপ্য ঠিক সে কারণেই কিন্তু তিনি বাঙালি মুসলিম সমাজের চোখে একজন অগ্রগণ্য মনীষী নন! রোকেয়ার যথার্থ মূল্যায়ন করে তাঁকে সমাজের বহু উঁচু আসনে তাঁকে বরণ করেছে বাঙালি মুসলমান এমনটা নয়!

কবি


উর্ব্বসী, অপ্সরা তোমরা চলে এসো
আমার কল্পস্বর্গলোকে
কোন স্বর্গে নটীর দাসত্বে
নিজেরে করিছো ছলনা।

মর্ত্যের ললনা হয়ে ছুটে আসো
সিক্ত করো নিজেরে প্রেমের পুষ্পজলে
আজ এখানে অবিরাম
কবিতার বৃষ্টি নামে
করবো তোমার রূপের বন্দনা।

খুঁজবো না কোনো
মন্দাকিনী মন্থরা
চাই না শোভিত নন্দন কানন
তিয়াসাতে অমৃত নয়
তম অধরে তারে- দিবো শান্তনা।

কোনো ইন্দ্রের আজ্ঞাতে নয়
ভয়হীন হৃদয় নাচে যদি পুলকে
প্রেমালোকে ভাসাও তারে
নিজেরে আর না করো বঞ্চনা।

ভালোবাসি বলে


আমি এখনও জ্যোৎস্নার আমন্ত্রণ উপেক্ষা করি না
গুমোট অন্ধকারেও তার সুবাস খুঁজে যাই
আমি এখনও অসাড় আবেগে নিজেকে হত্যা করি নি
বুঝি নিজেকে কিছুটা হলেও ভালোবাসি বলে।

আমি এখনও সাধ ও সাধ্যের হিসেব কষি
নিঃশেষ করতে পারি না অন্তরাত্মার আকুতি
ছুঁড়ে ফেলে দিতে পারি না বৃন্তচ্যুত স্বপ্নকুসুম
বুঝি নিজেকে কিছুটা হলেও ভালোবাসি বলে।

আমি এখনও স্বপ্নজাল ছিন্ন করি নি
সম্ভোগে শূন্য করতে পারি না আকাঙ্ক্ষাগুলো
ক্ষ্যাপার মতো বৈরাগ্য খুঁজি না প্রবল আগ্রহে
বুঝি নিজেকে কিছুটা হলেও ভালোবাসি বলে।

সখ্যতার সঙ্গিনী


এখানে মরুভূমির মতো গলা শুকোনো রোদ, ভরদুপুরে সবুজ রঙ থেকে হালকা টিয়েতে রুপান্তর হয় যুবক বয়সী পাতাগুলো। ফাঁকা চারপাশ সারি সারি বিন্যস্ত বাড়িগুলোতে কিছুটা পূর্ণ। এক মাইলের মতো ভেতরে ঢুকলে তখন দেখা যায় আবাদি জমির বিস্ফোরণ। মস্ত এলাকা জুড়ে খাঁ খাঁ মাঠসমুদ্র। বৈশাখের শুরুতে এখন গাছপাকা ফল, জমিতে প্রাপ্তবয়স্ক হতে শুরু করা হলুদ-সবুজাভ ধান, গ্রামের বুক ছুঁয়ে চলে যাওয়া শান্ত শীতল নদী। সবকিছুর সাহচর্যে এসেছিলো লাবণ্য। অনেকটা নিজের ইচ্ছায়, কিছুটা নিতুর প্রলোভনে পরে; তার মুখে মামার বাড়ির গ্রামের বর্ণনা শুনে। আজ মধ্যসকালে পল্লবপুরে এসে পৌঁছেছে দুজন। নিতুর থেকে শোনা তার মামাবাড়ি সম্বন্ধীয় বর্ণনা নিরপেক্ষই

বাংলা সিনেমায় 'সিঁড়ি'তে ধারণকৃত দৃশ্যে দেশের আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক অসমতার প্রতিচ্ছবি


অনেক বাংলা সিনেমায় ‘সিঁড়ি’র অংশে ধারণ করা দৃশ্যগুলো সিনেমার টার্নিং পয়েন্ট হয়ে থাকে। এই ‘সিঁড়ি’ তে ধারণকৃত দৃশ্য গুলো নানান রূপের হয়ে থাকে সিনেমার কাহিনী অনুযায়ী। বলা যায় আধুনিক কালে বাংলা সিনেমায় আর্থ-সামাজিক, রাজনৈতিক অসমতার সকল হৃদয়ভাঙ্গা গল্প এই ‘সিঁড়ি’র আগায় শুরু হয়, শেষ হয় ‘সিঁড়ি’র গোঁড়ায়!

ম্যানচেস্টার ট্র্যাজিডি: আইসিস্ সমর্থকদের উল্লাস


আর যাই হোক, শিশু হত্যাযজ্ঞের মধ্যে কোন ধরণের ’ঐশ্বরিক পরীক্ষা’ থাকতে পারে না। যা থাকতে পারে তার নাম, মানসিক দৈন্যতা অথবা মূর্খতা।

মেরিন ড্রাইভ সত্যিই অপূর্ব, মনোরম ও মনোমুগ্ধকর


সুজলা-সুফলা শস্য-শ্যামলা আমাদের এই বাংলাদেশ। প্রাচীনকাল থেকে বিভিন্ন পরিব্রাজক ও পর্যটকদের এ দেশে আগমন তারই সাক্ষ্য বহন করে। সপ্তম শতাব্দীতে প্রখ্যাত চৈনিক পরিব্রাজক হিউয়েন সাঙ বাংলাদেশ নামক এই ভূখণ্ডের মধ্যে এসে উচ্ছ্বসিত হয়ে উচ্চারণ করেছিলেন- “A sleeping beauty emerging from mists and water.” তিনি এই জনপদের সুপ্ত সৌন্দর্যটিকে কুয়াশা এবং পানির অন্তরাল থেকে ক্রমশ উন্মোচিত হতে দেখেছিলেন। প্রাকৃতিক লীলাভূমির দেশ-আমাদের এই বাংলাদেশ। এর অপরূপ সৌন্দর্য সবাইকে মুগ্ধ করে। মনে ছড়িয়ে দেয় মনোহরী রং। কক্সবাজার বাংলাদেশ তথা পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত। কক্সবাজারের কলাতলী থেকে টেকনাফ পর্যন্ত সমুদ্রের পা

মাত্র তিনজন মানুষ (১)মা-বাবা (২) প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক (৩) ধর্মীয় শিক্ষক – ই পারেন পৃথিবীটাকে বদলে দিতে।



“ভারত, পাকিস্তান ও বাংলাদেশ অবস্থান করছে Vally of Terrorism হিসাবে। এবং এঅবস্থান থেকে উত্তর করতে পারে মাত্র তিনজন মানুষ (১)মা-বাবা (২) প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক (৩) ধর্মীয় শিক্ষক। যদি একটি মানব শিশু জম্নের পর পর্যায়ক্রমে তিনটি অবস্থান থেকে প্রকৃত মানুষ তৈরী করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখেন, তাহলে আমাদের ভুখন্ড হিংসা, জঙ্গীমুক্ত স্বর্গ হতে বাধ্য”।

বাজেট, উচ্চশিক্ষার ভ্রান্তনীতি, সদিচ্ছাই অর্থায়নের সমাধান


ভূমিকাঃ আর কয়েকদিন পরেই অর্থমন্ত্রী সংসদে বাজেট উত্থাপন করবেন। তার অংশ হিসেবে এক প্রাকবাজেট আলোচনায় তিনি ঘোষণা করেছেন, সরকারী উচ্চমাধ্যমিক কলেজ, মেডিকেল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বেতন ৫ গুন বৃদ্ধি করবেন! এই ঘোষণার পর শিক্ষার্থী ও ছাত্র সংগঠন ও শিক্ষা সংশ্লিষ্টদের কোন প্রতিক্রিয়া দেখলাম না! বিভিন্ন সময় কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন অস্বাভাবিক বেতন-ফি বৃদ্ধি করা হয়, তখন ছাত্রসমাজ এর প্রতিবাদ করে। এবং ছাত্রদের আন্দোলন-সংগ্রামের গতিপ্রকৃতি দেখে সরকারও তার কৌশল ও অবস্থান পরিবর্তন করে!

পৃষ্ঠাসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর