নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 10 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • আমি অথবা অন্য কেউ
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • ড. লজিক্যাল বাঙালি
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • রুদ্র মাহমুদ
  • রাজিব আহমেদ
  • তায়্যিব
  • রুবেল হোসাইন
  • দিন মজুর

নতুন যাত্রী

  • নবীন পাঠক
  • রকিব রাজন
  • রুবেল হোসাইন
  • অলি জালেম
  • চিন্ময় ইবনে খালিদ
  • সুস্মিত আবদুল্লাহ
  • দীপ্ত অধিকারী
  • সৈকত সমুদ্র
  • বেলাল ভুট্টো
  • তানভীর আহমেদ মিরাজ

আপনি এখানে

ব্লগসমূহ

..........আমি লজ্জিত মুসলিম,,,,,,,,,,,,,,,,,


আমি মুসলিম আমার বোধোদয় হইয়াছে
আমি শুনিয়াছিলাম ধর্ষিতার আর্তনাদ
তাকে রক্ষা করতে পারিনি
আমি দেখিয়াছিলাম নিষ্পাপ ক্ষুদার্থ শিশুর কান্না
মুখে এক লোকমা অন্ন তুলে দিতে পারিনি
আমি মুসলিম বলেছিলাম,
মানব জাতির অবিভাবক হব
কথা রাখতে পারিনি।
আমি মুসলিম আমার উপলব্ধি হইয়াছে!
আমি শ্রেষ্ট আসনে বসার উপযুক্ত নই
আমি মুসলিম আমার উপলব্ধি হইয়াছে !
আমি মুসলিম নিকৃষ্টের সর্বেসর্বা।
আমি মুসলিম আমার বোধোদয় হইয়াছে!
আমার চোখের সামনেই গড়ে উঠেছে
আল কায়েদা, আই এস , জে এম বি
তাদের সুপথে ফিরাতে পারিনি

রোহিঙ্গাইস্যু এবং বাঙালি-মডারেট-মুসলমানদের কতিপয় চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য ও তাদের স্বরূপ


নামধারীমুসলমানশ্রেণীটির সঙ্গে আধুনিক চিন্তাভাবনার অধিকারী মডারেট-মুসলমানদের খুব একটা পার্থক্য নাই। তবে এরা সবসময় ইনিয়েবিনিয়ে ইসলামের নামে শয়তানী করতে ভালোবাসে। আর এদের অধিকাংশই সমাজের ধনিকশ্রেণী তথা আত্মস্বীকৃত-অভিজাতশ্রেণী। এদের অনেকেই আবার সমাজের ও রাষ্ট্রের পাওয়ার এলিট। কিন্তু চিন্তাচেতনায় ও মন্যুষত্বের পরিচয়ে এরা সাধারণ, মূর্খ, গোমরাহ ও ধর্মান্ধ মুসলমানদেরই প্রতিনিধি। তবে এরা সরাসরি সবকিছুতে সম্পৃক্ত হয় না। সবসময় এরা নিজেদের সাধারণদের মতো সবকিছুতে সম্পৃক্ত করে না। এরা সবসময় কৌশলী, এবং যুক্তিপ্রদর্শনে কিছুটা সক্ষম।

আমার ইচ্ছা


আমি এক নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান ।বহু সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে জীবনে প্রকৃত শিক্ষা অর্জন করতে পেরেছি। পরিবারের সদস্যদের আশা আমিই তাদের আর্থিক দুরবস্থা ঘোঁচাবো ও আর্থিক সমৃদ্ধি ঘটাবো ।নিজের পড়াশোনা ও আনুষাঙ্গিক খরচ নির্বাহের জন্য শিক্ষকতা করি ।আমি অনেক বিষয়েই শিক্ষা দিতে পারি তবে ছাত্রছাত্রীরা প্রধানত আমার কাছে দর্শন ও ইতিহাস শিক্ষণের জন্য আসে । আমার শ্রেণী কক্ষে জ্ঞানের অবাধ বিচরণ- শিক্ষা ,সাহিত্য ,বিজ্ঞান ,ধর্ম ,দর্শন ,ইতিহাস প্রভৃতি বিষয়ের অবাধ বিচরণ জ্ঞান সেখানে মুক্ত ।আসলে আমি শিক্ষক হিসাবে হেনরি লুইস ভিভিয়ান ডিরোজিও কে নিজের আদর্শ বলে মনে করি ।ডিরোজিওর শিক্ষার আদর্শে অনুপ্রাণিত

ধর্ম, রোহিঙ্গা এবং ইত্যাদি (১ম পর্ব)


হুম, আমি জানি তারা খুব কষ্টে আছে। হ্যাঁ তাদেরকে আমি ভালোবাসি, কারন তারা মানুষ এবং আমরাও। সবার উপরে মানুষ সত্য,তাহার উপরে কিছু নাই-এই চিরন্তন বানীকে আমি শ্রদ্ধা করি। রোহিঙ্গাসহ বিশ্বের সব নির্যাতিত সম্প্রদায়ের প্রতি রইল সমবেদনা। যেহেতু রোহিঙ্গা ইস্যুর সাথে ধর্ম জড়িত,তাই ধর্মকেই আগে বিশ্লেষণ করাই শ্রেয় বলে আমি মনে করি।

অং সান সুচির অমানবিক রাজনীতি এবং হিংসা-


অং সান সুচির অমানবিক রাজনীতি এবং হিংসা-
মায়ানমারে রোহিঙ্গাদের অত্যাচার করা হচ্ছে এবং সেদেশ থেকে রোহিঙ্গারা পালিয়ে বাংলাদেশে ঠাঁই নিয়েছে অনেকে। রোহিঙ্গারা মানুষ। তাই তাদের ঠাঁই দিয়ে ভাল করেছে বাংলাদেশ সরকার। কিন্তু নিজ দেশের লোকদের মানুষ করতে পারুক আর না পারুক তাদের তাড়িয়ে দেয়ার কোনো অধিকার আজকের পৃথিবীতে থাকতে পারেনা কারও।

একজন সু চি-র শান্তিকামনা


একটি দেশ। সুন্দর এবং গোছানো ভাবধারার মানুষেরা সে দেশে বাস করেন। দেশের ছোট্ট এক কিশোরী মানুষকে ভালোবাসে। সে মানুষের উপকারের কথা ভাবে। সে এই পৃথিবী এবং তার চারপাশের সব কিছুতে মুগ্ধ। কিশোরী বড় হয় এবং যৌবন পেরিয়ে পূর্ণতায় পৌঁছায়। সে গণতন্ত্র আর মানবতাবাদ নিয়ে কাজ করতে শুরু করে। এই পৃথিবীতে শান্তি ফেরানো তার স্বপ্নে পরিণত হয়। একসময় সে নিজের দেশে গণতন্ত্রের ধ্বজা উড়িয়ে শান্তি ফিরিয়ে আনতে প্রয়াসী হয়।

ইনোসেন্স অব মোহাম্মদ


অামরা সকলে জানি, রাহমাতাল্লিল অালামীন ছিলেন চরম মানবতাবাদী। তার দিল ছিলো মারাত্মক কোমল ও পরিষ্কার!
অাল্লাহর চাপে পড়ে তিনি এমন অনেক কাজ করেছেন যা তিনি কখনো করতে চাননি। অাসুন দয়ার নবীর এমন কিছু কষ্টদায়ক কাজের কষ্টের ভাগিদার অামরাও হই -

বেলুচিস্তানের অধরা স্বাধীনতা ১:


আজকের বেলুচিস্তান দেশ বিভাগের আগে ছিল কালাত আর সেটা কখনোই ভারতীয় উপমহাদেশের অংশ ছিল না। ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসকেরা যখন ক্ষমতা হস্তান্তর করে, তখন কালাত ছিল অন্যান্য দেশীয় রাজ্য কিংবা ভারত ও পাকিস্তান ডমিনিকান থেকে ভিন্ন। ১৮৭৬ সালের চুক্তি অনুযায়ী, কালাত একধরনের ‘স্বাধীন ও সার্বভৌম’ রাষ্ট্রের মর্যাদা ভোগ করত। উপমহাদেশে ব্রিটিশ সরকার থাকাকালীন কালাতের শাসকদের পক্ষে মুসলিম লীগের নেতা মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ছিলেন বেতনভুক আইনি উপদেষ্টা। তিনি সে সময়ে কালাতের স্বাধীনতার পক্ষে আইনি লড়াই চালিয়েছেন। পাকিস্তান হওয়ার পর জিন্নাহ ১৮০ ডিগ্রী পাল্টি খেলেন আর কালাতের স্বাধীনতা খর্ব করতে নানা কৌশলের আশ্রয় নিলেন

মানবতা কি খালি অমুসলিমদের দেখাতে হবে ? মুসলিমদের কোন মানবতাবোধ নেই ?


আই এস এর তান্ডবে যখন লক্ষ লক্ষ মুসলমান , ইয়াজিদি , খৃষ্টান বাড়ী ঘর ছেড়ে শরনার্থী হচ্ছিল , পাশের তুরস্কই প্রথমে তাদেরকে আশ্রয় দিতে চায় নি। পরে অবশ্য আন্তর্জাতিক চাপে পড়ে দিয়েছে। সৌদি আরব , কুয়েত , কাতার ইত্যাদি আরব দেশের কেউই তাদেরকে আশ্রয় দেয় নি। যদিও ৯০%ই ছিল মুসলমান শরনার্থি। সেই মুসলমানদেরকে আশ্রয় দিয়েছে হাজার কিলোমিটার দুরত্বের ইহুদি নাসারা কাফেরদের দেশ জার্মানি , ফ্রান্স , ইতালি ইত্যাদি। ইহুদি নাসারা কাফেররাই তাদেরকে মানবতা দেখিয়েছে। মুসলমানরা মানবতা দেখায় নি।

পৃষ্ঠাসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর