নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • কাঠমোল্লা
  • মিঠুন বিশ্বাস
  • মারুফুর রহমান খান
  • দ্বিতীয়নাম

নতুন যাত্রী

  • চয়ন অর্কিড
  • ফজলে রাব্বী খান
  • হূমায়ুন কবির
  • রকিব খান
  • সজল আল সানভী
  • শহীদ আহমেদ
  • মো ইকরামুজ্জামান
  • মিজান
  • সঞ্জয় চক্রবর্তী
  • ডাঃ নেইল আকাশ

আপনি এখানে

ব্লগসমূহ

ষোল আনা, বাঙালিয়ানা


“এক ঘণ্টার মধ্যে বেশিরভাগ জাপানী সৈন্য নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়। তারা হয় নিজেদের গুলিতে আত্মহত্যা করে অথবা আমাদের গুলিতে মারা যায়। তারা কখনও আত্মসমর্পণ করে নি। দলের কমান্ডার তখনও জীবিত। তিনি ছিলেন গর্বিত ও দুঃসাহসী। তিনি অবজ্ঞার সাথে তার তলোয়ার উঁচু করে ধরলেন এবং আমাকে আহ্বান করলেন তার সাথে দ্বন্দ্বযুদ্ধ করতে।”
-লেফটেন্যান্ট জেনারেল নিয়াজী (দ্য বিট্রেয়াল অব ইস্ট পাকিস্তান: পৃষ্ঠা ২৬)

হেফাজত আর আওয়ামী লীগ মিলে মিশে একাকার। হুদা চিল্লায়া লাভ নাই


প্রধানমন্ত্রি বলিয়াছেন ‌'হেফাজতের দাবি মানা হয়েছে, হচ্ছে' এর ফিরিস্তি তুলে ধরতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন,"হেফাজতে ইসলামের নেতারা বেশ কিছু দাবি-দাওয়া পেশ করেছেন। এ ব্যাপারে আমি কিছু কথা বলতে চাই। যে দাবিগুলো তারা করেছেন তার অনেকগুলোই কিন্তু ইতোমধ্যে বাস্তবায়ন করা হয়েছে। আমরা কিছু কিছু করেছি। কিছু দাবি বাস্তবায়নের পথে যেগুলোর যৌক্তিকতা রয়েছে। যদি কিছু থাকে, তা আলোচনার মাধ্যমেই সমাধান করা যেতে পারে।"

ঠেকাই মাথা


একদিন আমি সত্যি সত্যি তোর বুকে আঁচর কেটে জীবন ফেরত চাইবো।
একদিন আমি সত্যই তোর গাছের আম চুরি করে খাবো।
তোর নদীতে যে নৌকাটা মাঝরাতে জোছনা দেখাতে নিতে পারবে,
তাঁর দেহে হ্যালান দিয়ে বাঁশি বাজাবো।
তোর গ্রামের যে মেয়েটা রাতের বেলা চুপিসারে বাশবাগানে ভালোবাসার কথা বলতে আসবে,
আমি তাঁর হাতে গঞ্জের সবচেয়ে সুন্দর বালাটা পড়িয়ে দেবো।
তোর বৈশাখী মেলার রাতে বাউলের সাথে সিদ্ধি খাবো,
হারিয়ে যাবো সুরের আলোয়, রাতের আধারের খেলায় সেই মাঠেই ঘুমিয়ে পরবো।
রাতে দিনে সঁপে যাবো, তোর পরে থেকাই মাথা।
তোর আগে আমার বুকেই আসবে আঘাতের ব্যাথা।

'সাভারের দূর্ঘটনা ভয়াবহ কিছু নয়'-অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত


অবশেষে সাভারের মর্মান্তিক ভবনধ্বসের ব্যাপারে মুখ খুললেন মাননীয় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত।এবং এ ব্যাপারে বক্তব্য প্রদান করে তিনি গতানুগতিকভাবে ষোলকোটি বাঙ্গালীকে সন্তুষ্ট করেছেন বলে ধরে নেয়া যায়।বিদেশে থাকা অবস্থায় বার্তাসংস্থা এপিকে দেয়া এক সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকারে তিনি সাভারের ঘটনাকে 'তেমন ভয়াবহ নয়' বলে উদাহরণ দেন।একই সাথে তিনি জানান এটি একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা কারণ কিছুদিন আগেই এক অগ্নিকান্ডে বাংলাদেশে ১১৫ জন শ্রমিক মারা গেছেন।তাই বাংলাদেশে এ ঘটনা বড় ঘটনা নয় বরং স্বাভাবিক।

ড্রিমার কিংবা স্বপ্নচারি


আমি প্রতিদিনই ভাবি, শালার একটা দেশ কিছুতেই কিছু হচ্ছেনা। রাতদিন একাকার করে কোন একটা দিকে যখন দেশের জনগন এগিয়ে নিয়ে যায় তখনই হয় রাজনৈতিক শুয়ারগুলা নয় ধর্মের ব্যবসায়ীগুলা টাইনা পিছে ফালাইয়া রাখে। আর যদি কোনভাবে ফাকফুকরি দিয়া বাইর হইয়া যায় তাইলে প্রকৃতি গাইলটা মেরেই দিবে। আমরা একটা অদ্ভুত সহনশীল জাতি। নিজেদের পায়ে কুড়াল আসলে আমরা নিজেরাই মারি।
সংসদ সদস্যরা চান্দের দেশ থাইকা আহে নাই। আমরাই তাদের বানাইছি।
হেফাজতে ইসলাম আফগান থাইকা আহে নাই, আমরাই তাদের হাতে পতাকা তুইলা দিছি যেইটা দিয়া তারা অহন সমাবেশে ট্যাকা তুলে।
জামায়াতে ইসলামরে আমরাই দেশে জায়গা দিছি।

আমি হারতে শিখি নি,আমি নষ্ট হয়ে যাই নি আমি বিকিয়ে দেইনি আমার মনুষ্যত্বকে !


সিগারেটের প্যাকেট শূন্য আর
ঠান্ডা কফির পেয়ালা দেখে ভেবনা
আমি প্রান হীন হয়ে বেঁচে আছি।
আমি বার বার ভাগ্যের দুয়ারে কড়া নেড়ে,
ব্যর্থ হয়ে আবারো নতুন করে
সব কিছু ভুলে,সময়ের স্রোতে ভেসেছি।
আমি হারতে শিখি নি,আমি নষ্ট হয়ে যাই নি
আমি বিকিয়ে দেইনি আমার মনুষ্যত্বকে !
সস্তা দামের সুখ কেনার জন্য
নষ্ট পল্লীর কোন প্রমদ বালার হাতে
কিছু অর্থ গুজে দিয়ে ভালোবাসার
সওদা করতে পারিনি আজও !
আমিতো শুধু রাতের আধার কে আপন করেছি,
আর আধারের মাঝে আলো খুজেছি !!

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস ব্রিফিং সম্পর্কে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া


গতকাল ৩/৫/২০১৩ শুক্রবার ৬টার দিকে শুরু হয় বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সংবাদ সম্মেলন। পুরো অনুষ্ঠান জুড়ে সাভারের দুর্ঘটনা আর ১৩ দফা দাবিতে হেফাজতের অবরোধ কর্মসূচি নিয়ে কথা বলেন তিনি। আমরা আপাত দৃষ্টিতে আওয়ামীলীগ সভানেত্রী ও নবম জাতীয় সংসদের সরকারদলীয় প্রধান শেখ হাসিনার সংবাদ সম্মেলনের বক্তৃতাকে চারটি ভাগে ভাগ করতে পারি।

১. হতাশা এবং দেউলিয়াত্ব।

২. অপব্যখ্যা ও অসত্যপ্রবণতা।

৩. নমনীয়তা ও আপোষপ্রবণতা।

৪. রাজনৈতিক দূরদর্শিতা।

১. হতাশা ও দেউলিয়াত্ব :

ডাক্তার আইজু সংক্রান্ত


আইজুরে নিয়া যে কত কাহিনী দেখতাসি । আরো কত কাহিনী যে দেখমু , আল্লাহ পাকই ভালো জানেন ।

এই আমিই আমার একটা স্ট্যাটাসে কইসিলাম , আইজু পেইড দালাল ।
এহন এই আমারেই আবার কইতে হয় , আইজু নাকি ছাগু ।

আইজু দীর্ঘ ৬টা বছর মৌলবাদের বিরুদ্ধে লেখসে । মাইনষেরে বাংলালিংক দামে ছাগু ট্যাগ দিসে । এই আইজুরেই আজকে ছাগু ট্যাগ দেয়া হইলো । আর আমি তো ২ দিনের বইড়াগি । কবে জানি আমারেও কাঁচাপাকা বাঁশ প্রদান করা হয় ।

খেলা


-তুমি যখন আমাকে বললে, ‘আমাদের সম্পর্ক এখানেই শেষ’ আমি বিন্দুমাত্র অবাক হই নি। বরং, গত কয়েকদিন ধরে আমি এই অপেক্ষাতেই ছিলাম, ‘কখন আমাদের এই মরচে পড়া কাঠামোটা চূড়ান্তরূপে ভেঙ্গে পড়বে?’
আমি বরং বহু আগেই বুঝেছিলাম, তোমার কাছে আমার প্রয়োজন ফুরিয়ে গেছে। মজার ব্যাপার হচ্ছে তুমি কখনই বুঝতে পার নি, আমার কাছে তোমার কখনও কোন প্রয়োজন ছিল না। তুমি ভেবেছ তুমি আমাকে নিয়ে আর দশটা ছেলের মতই খেলেছ। কিন্তু, তুমি জানতে না, আসলে তা ভুল। আমিই তোমাকে নিয়ে খেলেছি। এবং খেলে চলেছিলাম। তুমি ভেবেছ এতদিন ধরে চলা এই খেলাটা তুমি এক মুহূর্তে ভেঙ্গে দিয়েছ। অথচ, খেলাটা তখনও চলছে। কারণ, আমি তাকে ভাঙ্গতে চাই না।

id hack


শশুর বাপ (হবু): তা ছেলে জানি কি করে…?
আমার বাপ : ব্লগিং
শশুর বাপ : বাহ! ছেলে তো খুবই ভালো…আমাদের
পছন্দ হয়েছে…তা আপনাদের
কি দাবী দাওয়া তা যদি..……
আমার বাপ : ছি ছি এইসব কি বলেন!আমাদের বাড়ি,গাড়ি,সোনা গয়্না কোনো কিছুই চাইনা…
শশুর: (খুশিতে গদগদ) বাহ! যৌতুক ছাড়া বিয়ে!
বাপ: নাহ মানে ছেলের ছোটো বেলার সপ্ন
ইলিশ মত্স্য খাবে… আপনি যদি বিয়ের সময়
মেয়ের সাথে একটা ইলিশ মত্স্য দিয়ে দিতেন.
… শশুর: হায়…হায়…এটা কি বললেন…
করি তো সামান্য মন্ত্রিগিরি ,ঘুষ খেয়ে আর কয়
টাকা আয় হয়,যে ইলিশ মত্স্য কিনতে পারব…
শুনছো টিয়ার মা তোমার হবু জামাই
বলে ইলিশখোর..…

পৃষ্ঠাসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর