নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 6 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • রবিউল আলম ডিলার
  • নুর নবী দুলাল
  • এন্টারকটিকায় পড়ছি
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • নরসুন্দর মানুষ
  • মৃত কালপুরুষ

নতুন যাত্রী

  • রবিউল আলম ডিলার
  • আল হাসিম
  • মাহের ইসলাম
  • এহসান মুরাদ
  • ফাহিম ফয়সাল
  • সানভী সালেহীন
  • সাঞ্জানা প্রমী
  • অতৃপ্ত আত্বা
  • মনিকা দাস
  • আব্দুল্লাহ আল ম...

আপনি এখানে

ব্লগসমূহ

শিশুটি আর আমি- মিলিত রাত্রির একপ্রস্থ সফেন উচ্ছ্বাস


এই ত্রিভুবনে এমন অনেক মায়াজড়ানো সজ্জা আছে যা আমাদের চোখে পড়েও পড়েনা। উপবনে একটা কুকুর বাচ্চা দিয়েছে। ছোট ছোট বাচ্চাগুলো রাস্তার ওপর শুয়ে থাকে ,খেলা করে ,একটু খর্ব কিছু করার চেষ্টা করে। খুব মায়াজড়ানো সজ্জা। বহুবেলা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখা যায় এ রকম একেকটা দৃশ্য । একটা একান্নবর্তী সংসার,যারা রাস্তায় সংসার করে তারা কুকুর ছানাগুলোকে দেখাশোনা করে। তাদের অবশ্য নিজেদের দেখাশোনা করারই সামর্থ্য নেই । ওই একান্নবর্তী সংসারেও কয়েকটা শিশু আছে। তারা রাস্তার পাশেই পেতে রাখা ছোট ছোট চাটাইয়ে শুয়ে থাকে। মাঝে মাঝে কুকুরের বাচ্চাগুলোকে কোলে নিয়ে বসে থাকে। কুকুরগুলোর গায়েও কোনো কাপড় নেই, বাচ্চাগুলোর গায়েও কোনো কা

অনুকাব্য


ইচ্ছে ঘুড়ি গুলো

ইচ্ছেমত উড়ুক আকাশে

যেন ইচ্ছে ঘুড়ি ভিজে

যাওয়ার কষ্টটা অসীম হয়

স্বপ্নের প্রজাপতিটা যখন তখন

স্বপ্নের রঙে রঙিন হোক

যেন স্বপ্ন দহনের

যন্ত্রণাটা অসহনীয় হয়

দুঃখের কষ্ট গুলো অসীম হোক

জ্বালাময় হোক তার আর্তনাদ

যেন কেউ তার প্রতি স্পর্শে

জলে পুড়ে খার হয়ে যায়

মনের জানালায় এক চিলতে রোদ এসে পড়ুক

একটা হাসিমুখ চেয়ে থাকুক আমার পানে

যেন তার হাসির সংস্পর্শে

নিজের সব যন্ত্রণা ভুলতে পারি

বিজ্ঞানময় অন্ধকার-৪ (শেষ পর্ব)


এই ৪ পর্বের শেষ পর্বে এসে যখন ৫ম প্রশ্নটি আজ রাখব বা রাখতে যাব তখন অতি সচেতনভাবে খেয়াল করলাম সবাই বা অনেকে আমার পোস্টের ধরণ অথবা রচনাশৈলী নিয়ে অনেক বা মাঝারী আকারের তর্ক অথবা বিতর্ক করেছেন আর, বিশ্বাসীরা স্বভাবেই প্রশ্নগুলো এড়িয়ে গেছেন। এর কারণ হতে পারে-
i) হয় তাঁদের প্রশ্নের উত্তর জানা নেই অথবা, ii) প্রশ্নকে মুকাবিলা করতে পছন্দ করেন না বা ভয় পান তাই ত্যানা পেচিয়ে এড়িয়ে জান।

আমি আগের ৪ টি সহ আজকের একটি অতিগুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন আপনাদের কাছে রাখব...

মহামতি আইনস্টাইনের সেই উক্তিটি

টীকা


ছেলেকে নিয়ে শিশু হাসপাতালে গিয়েছিলাম টীকা দেয়ার জন্য। হাসপাতালে যাবার আগে আমি জানতামই না আজকে কিসের টীকা দিচ্ছে। আমার বউ যাত্রাপথে ইন্টারভিউ নিল এবং আমি যথারীতি ধরা খেলাম।
যাই হোক, শিশু হাসপাতালে যেখানে বাচ্চাদের টীকা দিচ্ছে সেখানে কিছু লিফলেট পেলাম। আমার কাছে ইম্পরট্যান্ট মনে হল বলে শেয়ার করলাম। রোটা ভাইরাস নামে যে কিছু আছে সেটা আমি এই প্রথম জানলাম।

১) রোটা ভাইরাস

Know more: Wiki

And more info

গণতন্ত্র


গণতন্ত্র

ছাপার হরফে, বক্তিতাই সভায় আমরা অনেক কথা বলি...... আদর্শ, গণতন্ত্র, মানবিকতা সম্পর্কে । এই শব্দ গুলির সঙ্গে এমনি আমাদের খুব প্রেম। এই প্রেম শুধু বলা আর বক্তিতাই বা লোকদেখানোতেই যেন সীমাবদ্ধ আমাদের জীবনে। কিন্তু ব্যাক্তিগত জীবনে আমরা নিজ স্বার্থ অনুযায়ী এগুলিকে উল্টে পাল্টে নিজেদের সুবিধা মত স্বার্থ মত করে ব্যবহার করি। তেমনি অসাম্প্রদায়ীক, ধর্মনিরপেক্ষতা, ও মুক্তমনা কথা গুলি নিজ স্বার্থ অনুযায়ী উল্টে পাল্টে নিজেদের সুবিধা মত স্বার্থ মত করে ব্যবহার করছে এই সুশীল সমাজ।
বাংলাদেশে গণতন্ত্র কি আসলেই আছে?

একটি পালিয়ে বিয়ে এবং অতঃপর


ট্রেনে সিটে মুখোমুখি বসে আছে এক
দম্পতি। আসলে এক হবু দম্পতি। মাএ ঘন্টা দেড়েক আগেই বাসা থেকে পালিয়ে এসেছে।

- কি হইছে? কি চিন্তা করো?
- কিছু না।
- কিছু না হলে মুখটা এমন হুতুম পেঁচার মত করে রাখছো কেন?
- না মানে, আমরা যেই কাজটা করছি ঠিক করছি তো?
- এখানে ভুলের কি আছে? তুমি আমাকে ভালবাসো আর আমি তোমাকে এর থেকে বড় কোন কথা নাই।
- ঠিক আছে কিন্তু এটা তো ফ্যামিলির মাধ্যমেও করা যেত। যেত না?
- আমাদের পরিবারে মধ্যে যে ঝামেলা সেটা তো পুরনো। সেটা তুমি-আমি সমাধান করতে পারবা না। তাদের ঝামেলার ফল আমরা ভুগবো কেন?
- ঠিক আছে। তবে.....
- তবে টবে কিছু না। চুপ থাকো।
রাতুল চিন্তামুক্ত হতে পারলো না।

রহস্যে ঘেরা নারির মন!


মেয়েটা বৃষ্টিতে একা বসে ছিল। কেউ দেখে নাই বৃষ্টির সাথে চোখের নোনতা পানি মিলে মিশে একাকার হয়ে গেছে। মনের অজান্তেই শপথ নিয়েছে নিশ্চুপ হয়ে যাবে। ভালোবাসার মানুষদের সাথে প্রতিনিয়ত লড়াই করে টিকে থাকার সামর্থ্য ওর মধ্যে নেই। অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে, কি জানো একটা ভাবছে! হয়তো ভাবছে, মানুষের সুখের দিনগুলো কিভাবে এত তাড়াতাড়ি নিঃশেষ হয়ে যায়।
ফোন বাজছে !!
:হ্যালো আম্মু! মেয়েরা এত কষ্ট পায় ক্যানো বল তো?
মেয়ে যে তাই! ওদের জীবনে সুখ বলে কিছু নেই। মা হলে বুঝবি।

একজন নির্জনতার কবি অথবা একটি প্রবাদ "যে দেশে গুনীর কদর নেই সে দেশে গুনী জন্মায় না"


ড:মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেছেন,যে দেশে গুনীর কদর নেই সে দেশে গুনী জন্মাতে পারেনা আমরা বর্তমান কিছু ঘটনা বিশ্লেষন করলে বুঝতে পারব আমাদের দেশে গুনিদের কদর কতটুকু!
প্রাবন্ধিক আহমেদ ছফা বলেছিলেন- “তিনি রবীন্দ্রনাথের বাইরে,নজরুল ইসলামের চেয়ে দূরে”-এই রবীন্দ্র নজরুল কাব্য ভুবনের বাইরে সরূপ উদ্ঘাটন করতে গিয়ে তার সমালোচক বৃন্দও হরহামেশাই তার ললাটে সেটে এসেছেন নির্জন-সতন্ত্র-বাংলা প্রিয় বিশুদ্ব চৈতন্যের কবি উপাধি!

বাংলা কবিতায় ছন্দ ; কিছু প্রাথমিক আলোচনা


আমাদের ইস্টিশন এর কুখ্যাত বলগার অঘূর্ণায়মান ইলেক্ট্রন একটা অভ্যাস আছে। তিনি কমেন্টে কবিতা বলার (পড়তে হবে লেখার) আগে বলে নেন, আমার নাম অঘূর্ণায়মান ইলেক্ট্রন। আমি একটি কবিতা বলব। কবিতার নাম - গরুখেকো ঘাস।

শুনলেই বোঝা যায়, তিনি পিচ্চিকালে বহুত কবিতা আবৃতি করেছেন। তাই অভ্যাস ছাড়তে পারেন নি। আমরা বাকিরাও অনেকেই হয়তো করেছি কবিতা আবৃতি। স্কুলের বাৎসরিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে হাত পা নেড়ে নেড়ে আবৃতি করেছি -

ভোর হল দোর খোল খুকুমণি ওঠো রে
ওই ডাকে জুঁই শাঁখে ফুলখুকি ছোট রে।

মুক্তির কাব্য


জীবনকে উৎসর্গঃসেই সকল প্রতিপাদ্য বিষয়ে
আত্মহত্যায় ব্যর্থ নাগরিক,যাদের দায় নিয়েছে এ নষ্ট সময়
শরীরে জন্মাচ্ছে প্রলয়াকারের নিত্যনতুন ছত্রাক
বিভীষিকাময় জীবনপ্রণালী এবং খুন রাঙ্গা পথ,তাদের বেড়ে উঠা
নিয়ে কতো অভিযোগ,শৈশবের অপরিকল্পিত চর্চা

শৈল্পিক মূর্তি বেয়ে বীর্য-বিন্দু রক্ত-জলকণা
জল্পনার অবসান ঘটিয়ে এক পরিণত জলদস্যু
নতুন ধারার বিজ্ঞাপন নিয়ে আসা সপ্নভূক স্তন্যপায়ী
বৃষ্টি এবং জলপ্রপাতে ধুয়ে যাওয়া বিশুদ্ধ নীতিনির্ধারক
জল্পনার অবসান ঘটিয়ে ভ্রূণের মস্তিষ্কে সুপ্ত জনদুর্ভোগ

নিকোটিনের প্রাদুর্ভাব,গ্রাস করেছে বিবেক,হ্রাস করেছে হতবুদ্ধি

পৃষ্ঠাসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর