নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 7 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মিশু মিলন
  • আরণ্যক রাখাল
  • মলি
  • মনিরুজ্জামান মানিক
  • হাকিম চাকলাদার
  • নুর নবী দুলাল
  • মোহাম্মদ আল আমীন

নতুন যাত্রী

  • মারুফ মোহাম্মদ বদরুল
  • রাজীব গান্ধী
  • রুবেল মজুমদার
  • ব্লুএস্ত এয়ে
  • বকুল আহ্সান
  • মকছুদ ওসামা
  • প্রজাপতি
  • তাওহীদুল ইসলাম
  • জিসান রাহমান
  • আজুর ব্রেইস

আপনি এখানে

ব্লগসমূহ

পিতা পুত্রের ঘুমপারানি কথোপকথন


ঘুম পাড়ানোর সময় পাচ বছরের ছেলের সাথে কথোপকথনঃ

এক যে আছে সিসিমপুর। সেখানে একটা দেশ আছে।

  • সে দেশের নাম কি তুমি কি জানো?
  • বাংলাদেশ।
  • হুম্ম ঠিক বলেছো, সে দেশের নাম বাংলাদেশ। সে দেশেই তুমি, আমি আর আমরা সব্বাই থাকি। সে দেশে রাজাকার নামের কিছু ব্যাডবয়, মানে দুষ্টু লোকও থাকে। তারা কখনোই বাংলাদেশকে ভালবাসেনা। তারা পাকিস্তান নামে আরেকটা দেশকে ভালবাসে। তারা বাংলাদেশে থাকে, বাংলাদেশেই খায়, কিন্তু ঘুমায় পাকিস্তানে।
  • পাকিস্তানে ঘুমায় কিভাবে বাবা?

আসেন চুলকে দেই...


কিছুক্ষন আগে হাসপাতালের বস স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার সাথে হাসপাতালের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা হচ্ছিলো। রোগীদের বিভিন্ন অভিযোগ অনুযোগ, হাসপাতালে ওষুধ নাই ইত্যাদি ইত্যাদি বিষয়ও ছিল এর মধ্যে। সরকার যতটুকু ওষুধ সাপ্লাই দেয় এর বাইরে কিভাবে ওষুধ দেবো সেই নিয়ে প্রতিদিনই বিবিধ ক্যাচালেই আউটডোরে সকালের রোগী দেখার টাইমের একটা বিরাট অংশ ব্যয় হয়।

কার কোথায় অবস্থান !


বর্তমানে সাধারণ জনগণ আর জামাত-শিবিরের ঠিক মাঝে অবস্থান করছে আওয়ামী লীগ সরকার । তারা যতটা বুলি আওড়াচ্ছে কাজের বেলায় ততটা দেখা যাচ্ছে না । আর বিএনপি উসাইন বোল্টের মত এগিয়ে যাচ্ছে জামাতের সমর্থন পাওয়ার জন্য । তাই বলা যায় বিএনপির কাঁটাটি জামাতের দিকেই হেলে আছে । বিএনপি এজন্য অনেক সাধারণ মানুষের ভোট হারালো । ছাগু সম্প্রদায়ের ভোট তারা পাবেই, এটা গ্যারান্টি । ওদিকে আওয়ামী লীগ গণ জাগরণ মঞ্চ ভাঙ্গার কথা বলছে । তাদের উপর সাধারণের যে বাঁধভাঙ্গা সমর্থন ছিলো তা কমতে শুরু করেছে । হেফাজতীদেরকে সমাবেশ করার অনুমতি দিলো । এই হেফাজতীরা কখনোই যে তাদের ভোট দিবে না এটা সবারই জানা । তাই যদি নির্বাচনের আগে আওয়ামী

ভাই থামেন! অনেক হয়েছে দাড়ি-টুপিওয়ালা হুজুরদের একহাত দেখে নেয়া


ভাই থামেন! অনেক হয়েছে বাকস্বাধীনতার নামে বড় বড় বুলি কপচানো। অনেক হয়েছে অশ্লীলদের লক্ষ্য করে আপনার সুশীলতা প্রদর্শন। অনেক হয়েছে আপনার দাড়ি-টুপি ওয়ালাদেরকে স্বাধীনতার বিপক্ষ শক্তি হিসেবে পরিচিত করন। আজকে মসজিদ থেকে কাওকে বের হতে দেখলেই আপনি প্রশ্ন করে বসেন, ভাই আপনি কি জামাত-শিবির? অন্যদিকে যারা লুঙ্গি খুলে মুসলমান-অমুসলমান চেক করছে, তাদেরকে এক হাত দেখে নিচ্ছেন। ভাই! আপনার কি একবারও মনে হয়না, ঐসব চেকিংবাজ আর আপনার মাঝে কোনোরকম পার্থক্য নাই? ঐসব চেকিংবাজদের ভয়ে হিন্দুরা রাস্তায় বের হবে না। অন্যদিকে আপনার মতো সুশীলদের ভয়ে মানুষ দাড়ি-টুপি পড়তে পারবে না।

'সরকারী রাজনীতিকে' যে কারনে আমি ঘৃনা করি


গত দুদিন ধরে ফেসবুকে দেখলাম, সুব্রত শুভ, রাসেল ভাই আর আল্লামা শয়তান ওরফে নেমেসিসের গ্রেপ্তারের খবরে সবাই সরকারের প্রতি তাদের ক্ষোভ রীতিমতো উগরে দিয়েছে। কিন্তু গতকাল যখনই আসিফরে গ্রেপ্তার করা হলো, তখনই সেই ক্ষোভের বদলে একটা নির্লিপ্ত/সন্তুষ্ট ভাব। এর কারন কি?

ব্লগ এলায়েন্স এবং অপ্রাপ্ত বয়স্ক ইস্টিশন।


শৈশবে যখন বড় ভাইবোনরা স্কুল ইউনিফর্ম পড়ে, পিঠে ব্যাগ ঝুলিয়ে পরিপাটি হয়ে স্কুলে যেত তখন আমারও খুব ইচ্ছে হত তাদের সাথে স্কুলে যেতে। প্রায়দিনই কান্না জুড়ে দিতাম। পড়াশুনার প্রথম পাঠ মায়ের কাছে শেষ হলেও বয়সের কারণে আমাকে স্কুলে ভর্তি করা হত না। অবশেষে আমার আগ্রহ এবং কান্নার যন্ত্রনায় বাবা আমাকে নিয়ে গেলেন স্কুলে ভর্তি করাতে। তখনকার দিনে এখনকার মতো এত রং বেরংয়ের কিণ্ডারগার্টেন ছিল না বাড়ীর কাছাকাছি প্রাইমারী স্কুলই ভরসা। বাবা আমাকে সাথে নিয়ে হেডমাষ্টারের রুমে গেলেন। হেডমাষ্টার আমার দেখে বললেন- " হক সাব পুলাতো ছুডু। ক্যামনে ভর্তি করুম, এটিও সাব জামেলা করব।" বাবা স্যারকে বুঝালেন আমি সব পারি। স্যার

আছ তুমি মৃত্যুতে, আছ তুমি প্রেমে (প্রিয় কবি সিলভিয়া প্লাথ স্মরণে)


যতবারই দেখি বিষন্ন, অথচ স্বর্গীয় মুখখানি
ততবারই হয়ে পড়ি আচ্ছন্ন!
কি অজানা ব্যথা না জানি ছিল লুকিয়ে
কেউই পারে নি জানতে।

ঝালমুড়ি


বিষে হবে বিষক্ষয়
হরতাল আর নয়।

আপা ম্যাডাম দেখে যান
হরতাল শিখে যান

আমার জিজ্ঞাসা


এক সময় আমার গর্ব ছিল আমি বাংলাদেশী। কিন্তু এটা কোন বাংলাদেশ? যেখানে আমার মা, বাবা, ভাই কে বারবার ফোন করে বলতে হয় বাসা থেকে বের না হতে। যে বাংলাদেশে হিন্দু হয়ে জন্মানো একটা অপরাধ? নিরাপত্তার জন্য গোপন রাখতে হয় নিজের পরিচয়। যেখানে স্বামী স্ত্রী বাসা থেকে বের হলে লাঞ্চিত হতে হয়। আমরা কি এমন সাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ চেয়েছিলাম? আমাদের কি ধর্ম পালনের অধিকার নাই? আমরা কি সংবিধানে উল্লেখিত "নিরপেক্ষ রাষ্টে" ধর্ম পরিচয় দিতে পারবো না? আমাদের মন্দির ভাঙলে কি ধর্মের উপর আঘাত হয় না? আমাদের প্রতিমা ভাঙলে, মন্দিরে আগুনে দিলে, বাড়িতে আগুন দিলে কি, আমাদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত লাগে না?

পৃষ্ঠাসমূহ

Facebook comments

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর